রবিবার | ১৮ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৫ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

A National Daily In Bangladesh

মৃত্যুর পরও সুশান্তের বাড়িতে রান্নাবান্না চলছিল,দাবি পরিবারের

মৃত্যুর পরও সুশান্তের বাড়িতে রান্নাবান্না চলছিল,দাবি পরিবারের

​সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর মামলায় পরপর সামনে আসছে বিস্ফোরক তথ্য। ১৪ জুন সুশান্তের মৃত্যুর পর তাঁর ব্যান্দ্রার ফ্ল্যাটে কী হচ্ছিল, এবার সেই চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ্যে আনল এসএসআর-এর পরিবার।

জানা গেছে, ১৪ জুন সুশান্তের মৃত্যুর খবর পেয়ে তাঁর পরিবারের বেশ কয়েকজন (যে দুই বোন এবং তাঁদের পরিবার মুম্বাইতে থাকেন, তাঁরা হাজির হন ১১.৩০ টার দিকে) অভিনেতার ব্যান্দ্রার ফ্ল্যাটে হাজির হন। সেখানে গিয়ে দেখা যায়, সুশান্তের ফ্ল্যাটের রান্নাঘরে রান্নাবান্না চলছে। অভিনেতার মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তাঁর ফ্ল্যাটে অন্য যাঁরা থাকতেন, তাঁরা রান্না বসিয়ে দেন।

এমনকী, তাঁদের দেখে বোঝার কোনও উপায় ছিল না যে সেখানে কিছু হয়েছে। সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে তাঁদের যেন কোনও চাঞ্চল্য ছিল না বলেও অভিযোগ করে প্রয়াত অভিনেতার পরিবার। তাঁরা যেন বিষয়টিকে পাত্তাই দেননি ওইদিন। সুশান্তের মৃত্যুর পর নির্বিকার চিত্তে সেদিন তাঁর রান্নাঘর রান্না চলছিল বলে দাবি করে রাজপুত পরিবার।

প্রসঙ্গত, সুশান্তের ফ্ল্যাটে নীরজ সিং, দীপেশ সাওয়ান্ত এবং সিদ্ধার্থ পিটানি ১৪ জুন হাজির ছিলেন বলে জানা যায়। ওইদিন সকাল থেকে সুশান্তের ঘর থেকে আওয়াজ না পেয়ে, নীরজ এবং দীপেশ নামের দুই পরিচারক নীচের তলায় সিদ্ধার্থ পিটানিকে খবর দেন।

সিদ্ধার্থ হাজির হয়ে চাবিওয়ালাকে খবর দেন। এরপর সেই চাবিওয়ালাই সুশান্তের ঘরের তালা ভাঙেন বলে জানা যায়। যদিও সিবিআইয়ের জিজ্ঞাসাবাদের নীরজ, দীপেশ এবং সিদ্ধার্থ পিটানির বয়ানে গরমিল রয়েছে বলে খবর।

Facebook Comments

Posted ৬:১৬ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, ২৬ আগস্ট ২০২০

dailymatrivumi.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক
মোহাম্মদ নুরুজ্জামান মুন্না
প্রকাশক ও ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মশি শ্রাবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়

রূপায়ন করিম টাওয়ার, ৮০ কাকরাইল, ভিআইপি রোড, রমনা ঢাকা।
ফোন : ০২৪৮৩২২৮৮০
email : matrivumi@gmail.com

মিরর মাল্টি মিডিয়া প্রডাকশন লি: এর পক্ষে প্রকাশক মশি শ্রাবন কর্তৃক বি.এস.প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবী সার্কুলার রোড (মামুন ম্যানশন, গ্রাউন্ড ফ্লোর), থানা-ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত।