সোমবার | ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

A National Daily In Bangladesh

শ্বাসকষ্ট হাঁচি কাশিতে নবীজীর ওষুধ কুস্ত ফুল

শ্বাসকষ্ট হাঁচি কাশিতে নবীজীর ওষুধ কুস্ত ফুল

শ্বাসকষ্ট, হাঁচি-কাশি, গলা ব্যথার প্রোফেটিক মেডিসিন (হাদিসে বর্ণিত ওষুধ) কুস্ত। কুস্ত নামের গাছের শিকড় বহু বছর ধরে গলা ব্যথা ও শ্বাসকষ্টের ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। নবী হজরত মুহাম্মদ সা: ও তাঁর বেশ কয়েকজন সাহাবি কুস্তকে হাঁচি-কাশি, শ্বাসকষ্ট, গলা ব্যথার ওষুধ হিসেবে বর্ণনা করেছেন। বিশুদ্ধতম হাদিস বই বুখারি শরিফে এই হাদিসগুলো রয়েছে। কুস্ত আরবিতে কুদ আল হিন্দ নামে পরিচতি। এ ছাড়া আবু দাউদ শরিফেও এর বর্ণনা আছে। কেউ কেউ বলছেন, করোনা সংক্রমণ যেহেতু ফুসফুস ও গলায় প্রদাহ তৈরি করে সে কারণে করোনা সংক্রমণেও কুস্ত কাজ করতে পারে। কারণ মুসলমানরা বিশ্বাস করেন নবী মুহাম্মদ সা: যা বলেছেন, তার সবই আল্লাহর পক্ষ থেকেই বলেছেন।

বুখারির ৫ হাজার ৬৯২তম হাদিসে উম্মে কাইস বিনতে মিহসান (রা:) বলেন, নবী হজরত মুহাম্মদকে সা: বলতে শুনেছি, তিনি বলেছেন- কুদ আল হিন্দ দিয়ে চিকিৎসা করো। গলার সমস্যায় এবং কণ্ঠ ও ফুসফুসের সূক্ষ্ম ঝিল্লির প্রদাহে এটা মুখে ভেতরের এক অংশে রাখো। ৭টি রোগকে এটি সাড়াতে পারে।’

বুখারির ৫ হাজার ৬৯৬ নম্বর হাদিসে আনাস (রা:) নবী মুহাম্মদ সা থেকে বলেছেন, তোমাদের সন্তানদের গলাব্যথা হলে তাদের গলায় চাপ না দিয়ে কুস্ত দাও। আবু দাউদ শরিফে মিহসানের কন্যা উম্মে কাইস (রা:) বর্ণনা করেছেন, আমি আমার ছেলেকে নবীর সা: কাছে আনলাম। তখন আমি গলা ফুলে যাওয়ায় তার আল জিহবায় চাপ দিয়েছিলাম। নবী সা বললেন, কেন তোমরা তোমাদের ছেলেদের কষ্ট দাও? কুদ আল হিন্দ ব্যবহার করো। এতে ৭টি রোগের উপসম রয়েছে। এর মধ্যে ফুসফুসের সমস্যা একটি। আবু দাউদ (র) বলেন, কুদ আল হিন্দ বলতে তিনি ভারতীয় কুস্তকে বুঝিয়েছেন।

গলার সংক্রমণবিষয়ক আরেকটি হাদিস বর্ণনা করেছেন হজরত জাবির ইবনে আব্দুল্লাহ (রা:)। তিনি বলেন, একদিন নবী সা: তাঁর বাড়িতে আসলেন এবং দেখলেন একটি ছেলেকে তাঁর কাছে আনা হয়েছে। ছেলেটির মুখ ও নাক থেকে রক্ত ঝরছিল। নবী সা: জানতে চাইলেন কী হচ্ছে? আয়িশা (রা:) বললেন, ছেলেটি গলা সংক্রমণে ভুগছে। নবী বললেন, ভবিষ্যতে যেকোনো ছেলে এ রকম গলার সংক্রমণে অথবা মাথা ব্যথায় ভুগলে ওর মধ্যে কালো কুস্ত ঘষো এবং ছেলেটাকে এটা চুষতে দাও। আয়েশা (রা:) নবী মুহাম্মদের সা:-এর কথামতো কাজ করলেন এবং শিশুটি স্বাস্থ্যবান (সুস্থ) হয়ে গেল। (মুসনাদ আবি ইয়ালা : ১৯১২)। কুস্ত বা কুদ আল হিন্দবিষয়ক আরো কয়েকটি হাদিস রয়েছে।

দুই ধরনের কুস্ত পাওয়া যায়। এর মধ্যে কুস্ত আল হিন্দ একটু কালো এবং গরম। অপরটি হলো কুস্ত আল বাহরি। এটা মৃদু ও সাদা। কুস্ত আল হিন্দ কুথ আল সাংস্কৃতও বলা হয়। কুস্ত উত্তরপশ্চিম ও উত্তরপূর্ব হিমালয়ের পাদদেশীয় অঞ্চলে পাওয়া যায়। ভারতীয় উপমহাদেশে কুস্ত নিউমোনিয়া, ফুসফুস সংক্রমণসহ অন্যান্য ফুসফুস সংক্রান্ত অসুস্থতা, গলা সংক্রমণের ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এ ছাড়া চীনা, কোরিয়ান গাছ-গাছরা সম্পর্কীয় ঔষধী বইয়ের মধ্যেও একই রোগের ওষুধ হিসেবে বর্ণনা করা আছে।

মক্কার ম্যাটার্নাল অ্যান্ড চিলড্রেন হাসপাতালে কুস্ত আল হিন্দ নিয়ে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলছে। মিসরেও হাদিসে বর্ণিত এই ওষুধটি নিয়ে গবেষণা চলছে। বাংলাদেশে এই ওষুধটি চকবাজারের হার্বাল ওষুধের দোকানে পাওয়া যায়। গাছ-গাছড়া নিয়ে যারা ওষুধ তৈরি করেন তারা কুস্ত ব্যবহার করেন।

এ বিষয়ে খোঁজ-খবর রাখছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার মুহাম্মদ রিয়াজ উদ্দিন।

তিনি জানিয়েছেন, ‘প্রত্যেক রোগের ওষুধ রয়েছে’ এমন একটি হাদিস রয়েছে। তাই আমি খোঁজা-খুঁজি করি হাদিসে করোনা রোগের কোনো ওষুধ পাওয়া যায় কি না। হাদিসগুলো ঘেটে আমি এ সম্বন্ধে কয়েকটি হাদিস পাই।

তিনি বলেন, ইন্টানেটে কুস্ত ফুলের ছবি রয়েছে। কুস্ত ফুলের ছবি ঠিক করোনা ভাইরাসের ছবির মতো। এটা নিয়ে গবেষণা করা হলে দেখা যাবে এই কুস্ত দিয়েই করোনাভাইরাস সংক্রমণের চিকিৎসা সম্ভব। তিনি জানান, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আমার কিছু শুভাকাক্সক্ষী কুস্ত পাউডার নিয়মিত খেলে দেখা যায় তাদের করোনাভাইরাসে কাবু করতে পারেনি। তারা খুব দ্রুত তারা সুস্থ হয়ে গেছেন। তিনি জানান, কুস্ত সম্বন্ধে আমি বলছি এ কারণে যেন তা মানুষের উপকারে আসে। কুস্ত নিয়ে আমি কোনো গবেষণাও করিনি বা এ বিষয়ক কোনো ব্যবসাও আমার নেই।

Facebook Comments

Posted ৫:০০ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১

dailymatrivumi.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক
মোহাম্মদ নুরুজ্জামান মুন্না
প্রকাশক ও ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মশি শ্রাবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়

রূপায়ন করিম টাওয়ার, ৮০ কাকরাইল, ভিআইপি রোড, রমনা ঢাকা।
ফোন : ০২৪৮৩২২৮৮০
email : matrivumi@gmail.com

মিরর মাল্টি মিডিয়া প্রডাকশন লি: এর পক্ষে প্রকাশক মশি শ্রাবন কর্তৃক বি.এস.প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবী সার্কুলার রোড (মামুন ম্যানশন, গ্রাউন্ড ফ্লোর), থানা-ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত।